Breaking News
Home / TRENDING / পদ্মার ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করেছে ওপার বাংলা! সাফাই দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

পদ্মার ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করেছে ওপার বাংলা! সাফাই দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

নীল রায়।‌ পদ্মার ইলিশ পশ্চিমবঙ্গে আসে না। সেই দায় যেন রাজ্যবাসী কোনওভাবেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে ঘাড়ে না চাপান। তার চাইতে আগেভাগেই সাফাই গেয়ে রাখলেন তিনি। মঙ্গলবার রাজ্যের মাছ উৎপাদন নিয়ে বলতে উঠে প্রথমেই বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তা চুক্তির প্রসঙ্গ তোলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিস্তা জলবণ্টন চুক্তি না হওয়ায় তা নিয়ে বাংলাদেশ আক্ষেপ জানিয়েছিল। নরেন্দ্র মোদি সরকার দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসেছে আবার তিস্তা জলবণ্টন চুক্তি নিয়ে পদক্ষেপ নেবে তা ইতিমধ্যেই স্পষ্ট বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর কাছে। সেই প্রসঙ্গেই মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, “তিস্তার জল দিতে পারিনি ওদের। সেটা নিয়ে ওদের দুঃখ আছে। ওরা বন্ধু দেশ। আমাদের উপায় থাকলে দিতাম। ওরাও ইলিশ মাছ দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে।” প্রসঙ্গত, গত চার বছর ধরে এপাড়ে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে ওপার বাংলা। মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, “বাংলার মানুষ মাছে-ভাতে থাকে। ইলিশের চাহিদার জন্য আমরা ইলিশ মাছের রিসার্চ সেন্টার করেছি। বাংলায় এখন আর ইলিশের অভাব নেই। এখানেই প্রচুর ইলিশ হচ্ছে। দু’-এক বছরের মধ্যে আর বাইরে থেকে ইলিশ নিতে হবে না। তা ছাড়া আমাদের ইলিশ উৎপাদনের রিসার্চ সম্পূর্ণ হলে আগামিদিনে আমরা সারা পৃথিবীতে ইলিশ মাছ সরবরাহ করতে পারব।” মুখ্যমন্ত্রী সাফাই দিলেও, তিস্তা জলবণ্টন চুক্তিতে বাধা দেওয়াতেই যে পদ্মার ইলিশ এবারের বাঙ্গালীদের কাছে পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছে ওপার বাংলা। তা ইতিমধ্যে প্রকট হয়েছে রাজ্যবাসীর কাছে।

Spread the love

Check Also

“রাজ্যপাল বিধানসভা চালাতে দিচ্ছে না !” এবার রাজ্যপালকে তোপ তৃণমূল মুখ্যসচেতকের

সূর্য সরকার। বিধানসভার গণতান্ত্রিক এবং সাংবিধানিক অধিকারে হস্তক্ষেপ করছেন রাজ্যপাল। শুক্রবার সাংবাদিক বৈঠকে এমনটাই অভিযোগ …

বর্বর ধর্ষকদের প্রাণ ভিক্ষা নয়, কড়া বার্তা রাষ্ট্রপতির

ওয়েব ডেস্ক: নৃশংস অপরাধীর প্রাণ ভিক্ষার আবেদনে অনুমতি দেওয়া অনুচিত। কড়া বার্তা রাষ্ট্রপতির (President of …

তেলেঙ্গানায় ধর্ষকদের এনকাউন্টারে সায় নেই মমতার

নীল রায়। তেলেঙ্গানায় তরুণী পশু চিকিৎসককে গণধর্ষণ-খুনে (Telengana Gang Rape & Murder) অভিযুক্তদের  এনকাউন্টারে মৃত্যুর ঘটনার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *