Breaking News
Home / TRENDING / শিক্ষামন্ত্রীতে আস্থা নেই ! টুইট করে বুঝিয়ে দিলেন রাজ্যপাল

শিক্ষামন্ত্রীতে আস্থা নেই ! টুইট করে বুঝিয়ে দিলেন রাজ্যপাল

চ্যানেল হিন্দুস্তান ব্যুরো।

শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ওপর আস্থা নেই রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের। তাই শিক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে যাবতীয় দায়-দায়িত্ব মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) ওপরেই ছাড়তে চান তিনি। বৃহস্পতিবার সকালে পরপর দুটি টুইট করেন রাজ্যপাল। প্রথম টুইটে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের আমফান ঘূর্ণিঝড়ে (Amphan Cyclone Strom) বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শনের জন্য কেন্দ্র-রাজ্য সমন্বয়ের কথা বলেছেন তিনি। এরপরে টুইট এই নাম না করে শিক্ষামন্ত্রীর ওপর তীব্র অনাস্থা প্রকাশ করেছেন জগদীপ ধনখড় (Jagdeep Dhankhar)। তাই রাজ্যের শিক্ষাব্যবস্থার যাবতীয় দায়িত্ব মুখ্যমন্ত্রীর ওপরেই ছাড়ার কথা উল্লেখ করেছেন।

টুইটে রাজ্যপাল লিখেছেন, “রাজ্যের বর্তমানের কঠিন পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে শিক্ষা সংক্রান্ত বিষয়গুলিকে মুখ্যমন্ত্রীর বিবেচনার ওপর ছেড়ে দিলাম। মুখ্যমন্ত্রীর পক্ষ থেকে প্রাজ্ঞজনচিত প্রতিক্রিয়া আশা করবো।” বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিয়োগ নিয়ে রাজ্যপাল ও শিক্ষামন্ত্রী সংঘাত হয়েছিল সম্প্রতি। যার জেরে রাজ্যপালকে ‘মস্তান’ বলে আক্রমণ করেছিলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বিবাদ শুধু এখানেই নয়, রাজ্যের শিক্ষাক্ষেত্রে নৈরাজ্য চলছে বলে একাধিকবার অভিযোগ তুলে সরব হয়েছেন জগদীপ ধনখড়। পাশাপাশি‌ পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সঙ্গেও তাঁর নানা ইস্যুতে সংঘাত হয়েছে। সেক্ষেত্রে রাজ্যপালকে জবাব দিয়েছেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee)।

সম্প্রতি সেই তিক্ততা বাড়ে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিয়োগকে কেন্দ্র করে। বুধবার রাজভবনে সাংবাদিক বৈঠক করে রাজ্যপাল তথা বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের (Bardhaman University) আচার্য জগদীপ ধনখড় বলেন, “সহ উপাচার্য নিয়োগ নিয়ে যে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল তাতে একটা ঢাকনা লাগিয়ে দিয়েছি।” ওইদিন সকালে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ ফোনে এ ব্যাপারে তাঁর আলোচনা হয়েছে বলেও জানিয়েছিলেন রাজ্যপাল।

সেই প্রসঙ্গে জগদীপ ধনখড় বলেছিলেন, “রাজ্যে এখন তিনটি সমস্যা। একদিকে কোভিড সংক্রমণ, তার উপরে আছড়ে পড়েছে ঘূর্ণিঝড় আমফান এবং সেইসঙ্গে যোগ হয়েছে পরিযায়ী শ্রমিকদের চাপ। এই পরিস্থিতিতে শিক্ষা ক্ষেত্র নিয়ে বিতর্ক কাম্য নয়। আমি নির্দিষ্ট এই বিষয়ে সরকারের সঙ্গে কোনও রকম চাপানউতোর চাই না। এতে শিক্ষাঙ্গনে খারাপ প্রভাব পড়তে পারে।” প্রসঙ্গত, বিতর্কের সূত্রপাত নির্দেশিকা জারি করে রাজ্যপাল তথা বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য জগদীপ ধনখড়ের উপাচার্য নিয়োগের পর থেকে। তাতে তিনি আইনের ধারা উল্লেখ করে প্রাণীবিদ্যার অধ্যাপক গৌতম চন্দ্রকে সহ উপাচার্য (প্রশাসন ও শিক্ষা) হিসেবে নিয়োগ করেন বর্ধমান বিশ্ব বিদ্যালয়ে। কিন্তু, রাজ্যপালের সিদ্ধান্ত না মানতে চাওয়ায় সংঘাত হয় শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে।

Spread the love

Check Also

গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব চরমে, বিজেপির দিকে পা বাড়িয়ে রাজীব, ইঙ্গিতে বললেন অরূপ

চ্যানেল হিন্দুস্তান ব্যুরো। মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির দিকে পা বাড়িয়ে আছে? এমন একটি গুঞ্জন বেশ …

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের থাবা পূর্ব রেলে : আক্রান্ত শিয়ালদহ ডিআরএম অফিসের কর্মী

চ্যানেল হিন্দুস্তান ব্যুরো। করোনা ভাইরাসের (Coronavirus) সংক্রমনের থাবা ধরা পড়ল পূর্ব রেলে (Eastern Railway)। শনিবার …

করোনা মোকাবিলায় কলকাতায় বাড়ল কনটেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা

চ্যানেল হিন্দুস্তান ব্যুরো। কলকাতা সহ রাজ্যে কনটেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা এক ধাক্কায় অনেকটাই বেড়ে গেল। কলকাতা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!