Breaking News
Home / TRENDING / হুমায়ূন সমাধির মধ্যেই রয়েছে দারা শিকহোর সমাধিস্থল, ৩০০ বছর পর খুঁজে পেলেন দিল্লির ইঞ্জিনিয়ার

হুমায়ূন সমাধির মধ্যেই রয়েছে দারা শিকহোর সমাধিস্থল, ৩০০ বছর পর খুঁজে পেলেন দিল্লির ইঞ্জিনিয়ার

ভাস্কর মান্না:

শাহজাহানের বড় পুত্র তথা বিখ্যাত লেখক দারা শিকহোর মৃত্যু ও সমাধিস্থল নিয়ে বিভিন্ন মহলে জল্পনা রয়েছে। শিকহোকে কোথায় সমাধি দেওয়া হয়েছিল তা নিয়ে একাধিক গবেষণা করা হয়েছে। অবশেষে ৩০০ বছর পর দারা শিকহোর সমাধি নিয়ে একটি ধারণা প্রকাশ করল দিল্লির এক সিভিল ইঞ্জিনিয়ার।

রবিবার দক্ষিণ দিল্লির পৌর কর্পোরেশনের ৪৯ বছর বয়সী সিভিল ইঞ্জিনিয়ার সঞ্জীব কুমার সিংহ দাবি করেন, হুমায়ূনের সমাধির ভিতরেই রয়েছে দারা শিকহোর সমাধি। নিজের এই মতামত প্রসঙ্গে একটি যুক্তিসঙ্গত কারণও ব্যাখ্যা করেন তিনি। সঞ্জীবের কথায়, “ভারত সরকার দারা শিকহোর সমাধিস্থল খোঁজার জন্য প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগকে দায়িত্ব দেন। সাত সদস্যের ওই প্রত্নতাত্ত্বিক সমীক্ষায় তিনি নিজেও ছিলেন। সমীক্ষার জন্য দিল্লিতে হুমায়ূনের সমাধিস্থলের ভিতরে সন্ধান শুরু হয়। সেখানে দেখা যায় ১২০টি কক্ষে মুঘল পরিবারের সদস্যদের ১৪০টিরও বেশি কবর রয়েছে এবং তার মধ্যেই রয়েছে শিকহোর সমাধি।” তবে এর প্রমাণ হিসেবে তিনি যুক্তি দেন, হুমায়ূনের সমাধির প্রথম তলায় একটি কক্ষের মধ্যে তিনটি ফলক রয়েছে। দুটিতে আকবরের দুই ছেলে ড্যানিয়েল ও মুরাদের নাম রয়েছে। অন্যটিতে কারও নাম লেখা নেই। সম্ভবত সেটিই শিকহোর বলে মনে করা হচ্ছে। তবে এর পিছনে একাধিক যুক্তি রয়েছে। গত ৪ বছর ধরে যা তিনি জোগাড় করেছেন।

প্রথম যুক্তি, ওই সমাধিটি যে সেই সময়ের তা প্রমাণ করার জন্য মুঘল আমলের তৎকালীন একাধিক সমাধির সঙ্গে এটির তুলনা করা হয়েছে। যেমন নিরীক্ষণ করা হয়েছে নিজামুদ্দিনের দরগাহ কমপ্লেক্স, কুতুবদ্দিনের বখতিয়ার কাকির সমাধি, সিকান্দার আকবরের সমাধিকে। এই পরীক্ষায় এই এটি মুঘল আমলের বলেই চিহ্নিত হয়েছে।

দ্বিতীয় যুক্তি, দারা শিকহোর মৃত্যু প্রসঙ্গে দুই প্রখ্যাত পাশ্চাত্য ভ্রমণকারী ফ্রেঞ্চোইস বার্নিয়ার এবং নিককোলো মানুচি দুটি দাবি করেছেন। মানুচির মতে, দারার মাথা আগ্রার তাজমহল এবং দেহ হুমায়ূনের সমাধিতে সমাহিত করা হয়েছিল। আর বার্নিয়ার মতে, দারার শিরচ্ছেদ করা হয়েছিল। তবে মাথা ও দেহ দুটিই হুমায়ূনের সমাধিতেই রাখা হয়েছিল। সঞ্জীব মানুচির মতটিকেই প্রাধান্য দেন। কারণ সে সময় দারার মাথা কাটার কাহিনী মানুচির বইতে রয়েছে।

তৃতীয় যুক্তি, আমাদের দেশের সব ধরণের মূল মুঘল স্থাপত্যগুলি সাধারণত ফার্সিতে লেখা থাকে। এই সমাধির মধ্যেও ফার্সিতে লেখা ছিল। সঞ্জীব ফার্সি না জানায় দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্সিয়ান বিভাগের প্রধান ডঃ আলেম আশরাফ খানের কাছে লেখাগুলো নিয়ে যান। আশরাফ এই সমাধির লেখাটির সঙ্গে দারা শিকহোর মৃত্যুর সম্পর্ক রয়েছে বলে জানান।

এরকম অনেক প্রমাণ বিদেশ থেকে বিশেষ করে কাবুল ও রেঙ্গুন থেকে সংগ্রহ করা হয়। সেগুলোর সঙ্গে শিকহোর সমাধির অনেক সূত্র পাওয়া যায়।

দারা শিকহোর সমাধি নিয়ে অনেক ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে, তার কারণ নিজের ভাই ঔরঙ্গজেবই তাঁকে হত্যা করে দেহ সমাধিস্থ করেছিলেন। ইতিহাস থেকে জানা যায়, শাহজাহানের দুই পুত্র ছিলেন দারা শিকহো এবং ঔরঙ্গজেব। শিকহো ছিলেন প্রখ্যাত লেখক। এ ছাড়া মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে তিনি ছিলেন অসাম্প্রদায়িক গোঁড়ামিমুক্ত। দারা মুসলিমদের সুফি ও হিন্দুদের বেদান্ত দর্শনের মধ্যে সাদৃশ্য স্থাপন করেছিলেন তাঁর বইতে। অর্থাৎ তিনি মুসলিম হয়েও, মুসলিমদের গোঁড়ামিকে সহ্য করতে পারতেন না। দারার এই মনোভাবের জন্য তিনি সকলের মধ্যে জনপ্রিয় ছিল।

অন্যদিকে দারার ছোট ভাই ঔরঙ্গজেব ছিলেন সম্পূর্ণ বিপরীতধর্মী। তাঁর রাজত্বকালে তিনি হিন্দু মন্দির ও স্থাপত্য ধ্বংস করে দেন। আর মুসলিম স্থাপত্য তৈরি করেন। গোঁড়ামি ঔরঙ্গজেব দাদার অসাম্প্রদায়িকতা মেনে নিতে পারেননি। তিনি দারাকে একটি নোংরা হাতির উপর চাপিয়ে রাজধানীর রাস্তায় বেঁধে রেখেছিলেন। একদিন ঔরঙ্গজেব সৈন্যদের দারার মাথা কেটে নিয়ে আসার আদেশ দেন। সৈন্যরা মাথা নিয়ে এলে তিনি তিন ভাগে বিভক্ত করেন। এবং একটি টুকরো সোনার বাক্সে ভরে সৈন্যদের মারফত অসুস্থ বাবা শাহজাহানের কাছে পাঠান। এমনকি ঔরঙ্গজেব সৈন্যদের বলে দেন বাবাকে বলতে, আপনার ছেলে আপনার জন্য এমন এক উপহার নিয়ে এসেছে যা আপনি কোনওদিন ভুলতে পারবেন না। সৈন্যরা পৌঁছে দেখেন শাহজাহান ডিনার করছেন। হাতে সোনার বাক্সে উপহার আছে শুনে তিনি ঔরঙ্গজেবের প্রতি খুশি হন এবং পরে বাক্স খুলে নিজের ছেলের কাটা মাথা। এটা দেখেই অজ্ঞান হয়ে যান শাহজাহান। তারপর থেকেই দারা শিকহোর মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। তার দেহ কোথায় সমাধি করা হয় এখনও অবধি তা জানা যায়নি। তবে এই পুরো ঘটনার বিবরণ পাওয়া যায় মুঘল দরবারে কাজ করা ভেনিসীয় ভ্রমণকারী নিকোলাও মানুচির বই থেকে।

Spread the love

Check Also

আজও কলকাতায় বৃষ্টির সম্ভাবনা, বৃষ্টি হবে জেলাতেও

চ্যানেল হিন্দুস্তান ব্যুরো : আজও দক্ষিণবঙ্গের (South Bengal) কিছু জেলায় ভারী বৃষ্টিপাত হবে বলে জানাল …

পর্যবেক্ষকের পদ তুলে দিয়ে শুভেন্দুর হাতে পেনসিল, দল কার্যতঃ পিকে-ভাইপোর হাতে

অমিত রায় : জেলা পর্যবেক্ষকের পদ তুলে দিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। দলের …

কাশ্মীরে জঙ্গিদের গুলিতে মৃত্যু হল বিজেপি নেতার

চ্যানেল হিন্দুস্তান ব্যুরো: ৪৮ ঘন্টার ব্যবধানে জম্মু-কাশ্মীরে জঙ্গিদের গুলিতে আক্রান্ত হলেন দুই বিজেপি নেতা। বৃহস্পতিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!